Fiverr মার্কেটপ্লেসে বেশি অর্ডার পাবার টিপস

Fiverr মার্কেটপ্লেসে বেশি অর্ডার পাবার টিপস সমূহ:


নিচে আমরা ফাইবার মার্কেটপ্লেস থেকে বেশি অর্ডার পাবার টিপস গুলো নিয়ে ধাপে ধাপে আলোচনা করব। এই টিপস গুলো মেনে চললে আশা করা যায় আপনারা অতি দ্রুতই কাজ পাবনে! তবে অবশ্যই আপনার ধৈর্য, দক্ষতা, যোগাযোগ ক্ষমতা আর ভাগ্যের উপরে নির্ভর করছে আপনি কত দ্রুত কাজ পাবেন! যাই হোক, চলুন শুরু করিঃ

Fiverr more order Tips


১। সুন্দর প্রোফাইল তৈরি করুনঃ

একটি সুন্দর প্রোফাইল বেশি অর্ডার বা কাজ পাবার ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ! অধিকাংশ বায়ার প্রোফাইল দেখেই কিন্তু অর্ডার প্লেস করেন! তাই আগে আপনার প্রোফাইলটি সুন্দর করে সাজান! একটি ভালো প্রোফাইল তৈরি করার জন্য যা করবেন তা হলোঃ


একটি প্রোফেশনাল ছবি আপলোড করুন! ছবিটি দেখে যেন মনে হয় আপনাকে দিয়ে কাজ হবে। আপনি ফেইস ইমেজ (Face image) লিখে গুগলে সার্চ করে ইমেজ থেকে ১০ টি ছবি দেখুন! তাহলে আপনিই বুঝতে পারবেন কোন ছবিটি প্রোফেশনাল আর কোনটি নয়!

নামের নিচে টাইটেল সেকশনে আপনার প্রোফেশনাল ট্যাগ ব্যাবহার করুন! অনেকেই আছে এমন লিখেঃ ড্রিমার বয়, ফ্রিল্যান্সার ইত্যাদি। এমন না লিখে আপনার প্রোফেশনাল ট্যাগ ইউজ করুন। যেমনঃ ওয়েব ডেভেলপার, এসইও এক্সপার্ট, ইত্যাদি।

ডেসক্রিপশন বক্স ফাইবার মার্কেটপ্লেসে বেশি অর্ডার পাবার টিপস গুলোর মধ্যে অন্যতম। কারণ, বায়ার এসে বেশি ফোকাস করবে আপনার ডেসক্রিপশন বক্সে। তাই ডেসক্রিপশন বক্স খুব যত্নের সাথে লিখুন। প্রথমে আপনি কি কি কাজ জানেন তাই লিখবেন। আর এর পর সুন্দর করে বলবেন, বায়ার কেন আপনার কাছে বেশি সুবিধা পাবে! তবে কোন ক্ষেত্রেই অন্য কোন প্রোফাইল থেকে কোন লেখা কপি করবেন না। আবারও বলছি, সাবধান!

স্কিল গুলোতে আপনি যা যা পারেন তাই তাই যুক্ত করুন। কখনোই এমন জিনিস যুক্ত করবেন না যা আপনার কাজের সাথে অসংগতি পূর্ণ।

ভালো হয় যদি আপনি স্কিল টেস্ট দিতে পারেন। স্কিল টেস্ট দেবার আগে গুগল বা ইউটিউবে দেখে নিবেন কোন ধরনের প্রশ্ন থাকে!

আপনি যে ভাষা গুলো জানেন সেই ভাষাগুলো এড করে দিবেন। ইংরেজি ভাষা অবশ্যই Fluent এ রাখবেন।

আপনার এডুকেশনাল ব্যাকগ্রাউন্ড যুক্ত করবেন। যে বিষয়ে কাজ করবেন সেই সংক্রান্ত একটি কোর্সের কথা উল্লেখ করে সেটিও এডুকেশনলার কোয়ালিফিকেশনে যুক্ত করবেন।

ফাইবারে সার্টিফিকেট এড করতে কোন ডকুমেন্টস লাগে না। তাই আপনার দক্ষতার সাথে মিল রেখে একটি সার্টিফিকেটের কথা উল্লেখ করে দিবেন।

এই কাজ গুলো সঠিক ভাবে করলে আপনার প্রোফাইল খুবই সুন্দর ভাবে তৈরি করা সম্ভব।


২। এসইও ফ্রেন্ডলি গিগ তৈরি করুনঃ

ফাইবার মার্কেটপ্লেস থেকে বেশি অর্ডার পাবার টিপস গুলোর মধ্যে দ্বিতীয় নাম্বারে আমরা আলোচনা করব গিগ নিয়ে। এক একটি গিগ হলো এক একটি সার্ভিস। আপনি আপনার কাজের পরিধি অনুযায়ী কয়েকটি গিগ পাবলিশ করুন। যেমন, আপনি যদি গ্রাফিক্স ডিজাইনার হয়ে থাকেন তাহলে লোগো ডিজাইন, ফ্লাইয়ার ডিজাইন, টি-শার্ট ডিজাইন প্রভৃতি কাজের উপর ভিত্তি করে আলাদা আলাদা গিগ পাবলিশ করুন। একই ভাবে অন্যান্য স্কিলে যারা আছেন আপনারাও আপনাদের কাজের ভিত্তিতে কয়েকটি গিগ পাবলিশ করুন!

এসইও ফ্রেন্ডলি গিগ বানানোর ক্ষেত্রে নিচের পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করুনঃ


প্রথমে ভালোভাবে গিগ রিচার্চ করুন। গিগ রিচার্চের ক্ষেত্রে প্রথম সারির কতগুলো গিগ নিয়ে সেই গিগ গুলোর টাইটেল, ট্যাগ ইত্যাদি ভালোভাবে খেয়াল করুন।

গিগ রিচার্চের মাধ্যমে পাওয়া কিওয়ার্ড গুলো গিগ টাইটেলে রাখার চেষ্টা করুন!

মেইন কিওয়ার্ড ইউআরএল, টাইটেল, ডেসক্রিপশন, ট্যাগ, সব জায়গায় রাখার চেষ্টা করুন।

গিগে ভিডিও যুক্ত করলে গিগ সেল হবার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়!

গিগ ইমেজ অপটিমাইজ করুন! সাইজ ১০০ কেবি এর কম হলে এসইও এর জন্য ভালো। ইমেজে Alt Tag যুক্ত করুন।

বায়ার কোন কিওয়ার্ডে আপনার গিগ খুঁজতে পারে সেই সকল কিওয়ার্ড ট্যাগে ব্যাবহার করুন। এটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ!

আপনি ফাইবার মার্কেটপ্লেসে নতুন হয়ে থাকলে ব্যাসিক সার্ভিসে কম ডলার রাখার চেষ্টা করুন। যত কম রাখা যায় তত ভালো। তবে, এডভান্সড সার্ভিসে পেমেন্ট বাড়িয়ে নিতে পারেন।

গিগ ডেসক্রিপশন অবশ্যই অত্যন্ত চমকপ্রদ করে লিখবেন! কোনকিছু অন্য একাউন্ট থেকে কপি করবেন না। আপনার গিগ ডেসক্রিপশনের উপর নির্ভর করছে আপনার গিগ একজন বায়ারকে কতটা আকৃষ্ট করতে পারে!

এই পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করে আপনি একটি সুন্দর এসইও ফ্রেন্ডলি গিগ তৈরি করতে পারবেন।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url